ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯
স্লিম হওয়া

স্লিম হওয়ার শর্টকাট পন্থা

20Fours Desk | আপডেট : ২১ জুলাই, ২০১৯ ২০:১৬
স্লিম হওয়ার শর্টকাট পন্থা

শরীরের বাড়তি ওজন আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য হুমকি সরূপ আর এটা নিয়ে আমাদের চিন্তার অন্ত থাকেনা। অনেকেই আছেন অনেক ধরণের পদ্ধতি অনুসরণ করেন আবার কেউ কেউ মেডিসিন ব্যবহার করে থাকেন, নিজের ওজন কমিয়ে ঝরঝরে ও ফিট সকলেই থাকতে চায়। কিন্তু অনেক ডায়েট ব্যায়ামের পরও স্লিম হতে পারছেন না? আজকের লেখা আপনাদের জন্যই মুলত স্লিম হওয়ার শর্টকাট পন্থা।


চলুন তাহলে দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক স্লিম হওয়ার শর্টকাট পন্থাঃ

(১) ডায়েট মানেই সেই একঘেয়েমি খাবার। হালকা, মশলা ছাড়া খাবার খাওয়া। ইচ্ছে করলেও তেল মশলার খাবার খেতে পারেন না। কিন্তু, মনকে কষ্ট দিয়ে কী আর ডায়েট করে রোগা হওয়া যায় ? মনের মধ্যে সব সময়ই টেস্টি খাবার খাওয়ার একটা প্রবণতা থাকে। তাই ডায়েট করলেও সপ্তাহান্তে একদিন মশলাদার খাবার খান। তাতে ঝালের পরিমাণ যেন অনেক বেশি থাকে। অতিরিক্ত ঝাল খাবার খাওয়ার ফলে শরীরের মেটাবলিক রেট বেড়ে যায়,যা শরীরের তাপমাত্রাও বাড়িয়ে স্লিম হতে সাহায্য করে। এছাড়া খাবার যদি ঝাল হয় তাহলে সেটা আমরা ধীরে ধীরে খাই। ফলে খুব তাড়াতাড়া আমাদের পেট ভরে যায়। তবে এই অতিরিক্ত মশলাদার ঝাল খাবার কিন্তু, রোজ খাবেন না। তাহলে পেটের বারোটা বাজা থেকে রক্ষা নেই।

(২) শেষ পাতে মিষ্টি না খেলে মন যেন ভরেই না। আর উৎসব বা অনুষ্ঠান হলে তো কোনও কথাই নেই। মিষ্টি ছাড়া যেন অনুষ্ঠান বাড়ি বৃথা হয়ে যায়। তাছাড়া কারণে অকারণে মিষ্টি খেতে অনেকেই পছন্দ করেন। কিন্তু, স্লিম হতে গেলে যে মিষ্টি খাওয়া বন্ধ করতে হবে। যখন ইচ্ছে তখনই মিষ্টি খেতে পারবেন না। তাই যখন মিষ্টি খেতে ইচ্ছে করবে তখন ভ্যানিলার গন্ধ নিন। এতে মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছে কিছুটা হলেও সংবরণ করতে পারবেন।

(৩)  যার সঙ্গে খাবার খান সেই মানুষটিই কিন্তু আপনার মোটা হওয়ার কারণ হতে পারে। আর সেটা পরিবারের কোনও সদস্যও হতে পারেন। কারণ আমরা মোটা হলাম কী রোগ তাতে পরিবারের সদস্যদের খুব একটা যায় আসে না। তাঁরা সব সময়ই চান আমরা যেন ভালো করে খাওয়া দাওয়া করি। একটু কম খেলেই সেটা তাঁদের নজরে পড়ে যায়। এটা শুধু পরিবারের সদস্যরাই করেন তা নয়। বন্ধুরাও অনেক সময় খেতে জোর করে। ফলে কার সঙ্গে খাচ্ছেন সেটা ভেবে দেখুন।


এই পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করুন দেখবেন সহজেই স্লিম হবেন সেই সাথে অবশ্যই একসঙ্গে বেশি খাবার নিয়ে খেতে বসবেন না।

উপরে