ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৯
স্মার্টফোনের আসক্তি

স্মার্টভাবে কমিয়ে ফেলুন স্মার্টফোনের আসক্তি

20fours Desk | আপডেট : ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৮:৩৫
স্মার্টভাবে কমিয়ে ফেলুন স্মার্টফোনের আসক্তি

বর্তমান সময়ে মোবাইল ফোন বা স্মার্টফোনের ব্যবহার অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে পুরো বিশ্বে প্রায় ৫ বিলিয়ন মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে। এটি যেমন আমাদের জন্য প্রয়োজনীয়, তেমনি এর অতিরিক্ত ব্যবহার আমাদের অনেক ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। বর্তমানে আমাদের মাঝে অনেকেই স্মার্টফনের প্রতি এতটা আসক্ত হয়ে গেছে যে তা আমাদের স্বাভাবিক জীবনে অনেক ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। আর একথা আমরা সবাই জানি যে, স্মার্টফোন আমাদের কতটা ক্ষতি করছে। আর আমরাও অনেক চেষ্টা করছি এই স্মার্ট ফোন থেকে আমাদের মনোযোগ কমাতে। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও হয়তো আমরা পারছি না। তাওলে আসুন আজ জেনে নিই কিভাবে এই স্মার্টফোনের আসক্তি কমানো যায় তা সম্পর্কে।

যেভাবে স্মার্টফোনের আসক্তি কমাবেনঃ

১। স্মার্টফোনের আসক্তি কমাতে পরার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এজন্য প্রতিদিন সকালে দৈনিক পত্রিকা পড়ার অভ্যাস করুন এবং রাতে ঘুমানোর আগে পছন্দের কোনো নতুন বা পুররাতন বই পড়ার অভ্যাস করুন। যানজটে বসে মুঠোফোনে গান না শুনে বা ফেসবুক ব্যবহার না করে বই পড়ার অভ্যাস করুন। এর ফলে দেখবেন আপনার যেমন অনেক কিছু জানা হচ্ছে, তেমনি আপনার স্মার্টফোনে আসক্তি অনেকটা কমে আসছে।

২। স্মার্টফোনে আমরা সবচেয়ে বেশি সময় ব্যয় করে থাকি ফেসবুক, টুইটারের মত সোস্যাল সাইট গুলোতে। আপনি যদি স্মার্টফনের আসক্তি কমাতে চান, তাহলে সবার আগে এসব সাইট থেকে মনোযোগ কমাতে হবে। আর জন্য এসব সাইটের নোটিফিকেশন অফ করে দিন। এতে এসব সাইটে বারবার যাওয়ার আগ্রহ কমে আসবে। এতে ফোনের আসক্তিও কমবে। ই-বুক পড়ার অভ্যাস বদলে ফেলুন।

৩। ক্লাস কিংবা অফিসের মিটিং-এ যাওয়ার আগে আপনার স্মার্টফোন টিকে একদম মিউট করে ব্যাগে অথবা ড্রয়ারে রেখে দিন। এতে বারবার স্মার্টফনে চোখ যাবে না এবং আপনার মনোযোগ নষ্ট হবে না। ইমেইলের উত্তর স্মার্টফোন দিয়ে না দিয়ে কম্পিউটার দিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন। দৈনন্দিন কাজের হিসাব, অন্য কোন কিছু লেখার জন্য মুঠোফোনের অ্যাপ ব্যবহারের চেয়ে কিছুদিন ডায়েরিতে হাতে-কলমে লেখার অভ্যাস করুন।

৪। খাওয়ার সময় স্মার্টফোন ব্যাবহার করবেন না। খাওয়া উপভোগ করার জন্য ফোন থেকে দূরে থাকুন। এছাড়াও পারিবারিক বা সামাজিক অনুষ্ঠান গুলোতে স্মার্টফোন নিয়ে পরে থাকবেন না। সবার সাথে আনন্দ নিয়ে মেশার চেষ্টা করুন এবং অনুষ্ঠান গুলোকে উপভোগ করার চেষ্টা করুন। বিভিন্ন আড্ডা কিংবা খেলার মাঠে নিজের অংশগ্রহণ বাড়ানোর চেষ্টা করুন।

৫। ঘুমানোর সময় বালিশের পাশে মুঠোফোন নিয়ে ঘুমাবেন না। এতে ফোনের তেজস্ক্রিয়াজনিত ঝুঁকি থেকে মুক্ত হওয়া যায়, তেমনি ঘুম থেকে উঠেই স্মার্টফোনে চোখ রাখার অভ্যাস কমানো যায়। স্মার্টফোনে আসক্তি কমাতে সাধারণ মোবাইল ফোন ব্যবহার শুরু করতে পারেন, যা শুধু কাজের জন্য কল দেওয়া আর খুদেবার্তা পাঠানোর জন্য ব্যবহার করবেন।

উপরে