ঢাকা, শনিবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯
সারাক্ষণ স্মার্টফোনেই পড়ে আছেন?

সারাক্ষণ স্মার্টফোনেই পড়ে আছেন? জানেন তো এর ফলে কি হয়ে থাকে?

20fours Desk | আপডেট : ১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০৯:৩৪
সারাক্ষণ স্মার্টফোনেই পড়ে আছেন? জানেন তো এর ফলে কি হয়ে থাকে?

বর্তমান সময়ে মানুষের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় একটি জিনিস হলো মোবাইল ফোন। এটি আমাদের জীবনের সাথে এমন ভাবে জড়িয়ে আছে যে, এটি ছাড়া আমরা এক দিনও ভাবতে পারি না। বর্তমান পৃথিবীতে প্রায় ৫ বিলিয়ন মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে। দিনের এমন কোনও সময় খুঁজে পাওয়া কঠিন যখন আমরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করি না। কিন্তু আমরা অনেকেই বুঝতে পারছি না যে, এই অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে আমাদের জীবনে কতটা নেতিবাচক পরিবর্তন ঘটছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু গবেষকরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত মোবাইল ফোনের ব্যবহারের ফলে মানুষের হাঁটা-চলার অনেক পরিবর্তন হচ্ছে। আবার অন্য একটি গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় ২.৬ কোটি ব্রিটিশ নাগরিক মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে বুড়ো আঙ্গুলের ব্যাথায় ভোগেন। মোবাইল ফোনের মতো ডিভাইস ব্যবহারের কারণে একই আঙুল বারবার ব্যবহারের ফলে সৃষ্ট এই ব্যাথাকে বলা হয় ‘ব্ল্যাকবেরি থাম্ব’। শুধু তাই নয়, অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে আমাদের আরও অনেক ক্ষতি হচ্ছে। আসুন তবে জেনে নিই অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে আমাদের কি কি ক্ষতি হতে পারে তা সম্পর্কে।

অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকঃ

১। বর্তমানে আমরা অনেকেই মোবাইল ফোনে দীর্ঘ সময় ধরে মেসেজিং বা চ্যাটিং করে থাকি। আর এর ফলেও কিন্তু আমাদের বেশ ক্ষতি হতে পারে। আসলে অতিরিক্ত সময় ধরে মেসেজ টাইপ করলে আমাদের আঙুলের অস্থি-সন্ধিতে ব্যথা হতে পারে যা পরবর্তীকালে আর্থরাইটিসের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। এছাড়াও অনেকেই অনেক সময় মোবাইল ফোনকে কাঁধ ও কানের মাঝে রেখে কথা বলেন কিংবা অনেকে আবার অতিরিক্ত ঝুঁকে বসে দীর্ঘ সময় ধরে মেসেজ পাঠাতেই থাকেন। এর ফলে অল্প বয়সেই আর্থরাইটিসের কবলে পড়তে হতে পারে।
২। আমেরিকার ন্যাশনাল আই ফাউন্ডেশনের করা বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, দিনের বেশিরভাগ সময় মোবাইল ফোন অতিরিক্ত ব্যবহার করলে বা লম্বা সময় ফোনের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকার ফলে দৃষ্টিশক্তি অনেক দুর্বল হয়ে যায়। একই সাথে যদি চোখের খুব কাছে রেখে অতিরিক্ত সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করা হয় তাহলে আমাদের  জিনগত সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এজন্য প্রয়োজন ছাড়া অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন গবেষকেরা।
৩ । আমরা শুনে সবাই অনেক হবো যে একটি টয়লেট সিটের থেকেও আমাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিতে অনেক বেশি জীবাণু রয়েছে। কি শুনে অবাক হচ্ছেন! বিশ্বাস না হলেও এটাই সত্যি। গবেষকরা বলছেন, টয়লেট সিটের চেয়েও প্রায় ৭ গুণ বেশি নোংরা হলো আমাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি। কারণ প্রতি মুহূর্তে প্রায় অসংখ্য ব্যাকটেরিয়া বিরাজ করে আমাদের মোবাইল ফোনটিতে। বিশেষ করে  অনেকেই রাবার বা চামড়ার খাপে মোবাইল ফোন রাখেন। আর এর ফলেই সবচেয়ে বেশি ব্যাকটেরিয়া মোবাইলে বাসা বাঁধে ।
৪। আমরা অনেকেই জানি না যে, আমাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে উচ্চ ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশন নির্গত হয়। আর এই ক্ষতিকর ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক তরঙ্গ আমাদের মস্তিষ্কের ক্যানসারের অন্যতম কারণ হতে পারে। এছাড়াও শরীরের অন্যান্য কোষেরও এই ক্ষতিকর তরঙ্গের কারণে  ক্ষতি হতে পারে। একই সাথে এটি পুরুষের প্রজননতন্ত্রের বিশেষ করে এই তরঙ্গ শুক্রাণুর ওপর প্রভাব ফেলে এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমিয়ে দিতে পারে।
৫। অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ফলে আমাদের সবচেয়ে বেশি যে সমস্যাটি হয় তা হল ইনসোমিয়া  বা অনিদ্রা। ঘুমোতে যাওয়ার আগে যাদের মোবাইল ফোন ব্যবহারের অভ্যাস রয়েছে তাদের ঘুমের মারাত্মক রকমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। যা পরবর্তীতে স্লিপিং ডিসঅর্ডারেও পরিণত হতে পারে।

উপরে