ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮

উৎসবের দিনে বা বাসায় অনুষ্ঠানে আপনি এবং আপনার অটিস্টিক শিশু

উৎসবের দিনে বা বাসায় অনুষ্ঠানে আপনি এবং আপনার অটিস্টিক শিশু
উৎসবের দিনগুলোতে অন্য সবার মত করে উৎসব পালনটা হয়ে উঠেনা অটিস্টিক শিশুদের বাবা মা এর। আমরা যে যা বলে নিজেদের স্বান্তনা বা প্রবোধ দেই না কেন, এটিই বাস্তব। আবার এদিকে উৎসবের রেশ ধরে আত্মীয় সজন বা বন্ধুরা বাড়িতে আসবে- এটাও ঠিক। সব দিকে সমন্বয় করেই বিশেষ করে আপনার শিশুর দিকটাকে প্রাধান্য দিয়ে উৎসবের দিনটিকে আনন্দময় করে তুলুন। আপনার অটিস্টিক শিশুকে নিয়ে উৎসবের দিনে নিম্নের বিষয়গুলোর প্রতি বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখতে পারেন। উল্লেখ্য এগুলো কোন বিশেষজ্ঞ মতামত নয়, নেহায়েত ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে লিখছি। ১। অটিস্টিক শিশুরা দৈনিক রুটিনের মধ্যে থাকতে কমফোর্টেবল থাকে। সারাদিনে বাসায় যাই করুন না কেন, তার যে সকল কাজ থাকে সেগুলো সময় অনুযায়ী রাখার চেস্টা করুন। ২। বাসায় সেদিন অতিথিরা আসবে, এটা স্বাভাবিক। তাদেরকে অনুরোধ করুন যেন তারা দিনের একটা নির্দিষ্ট সময়ে আসেন। নইলে দেখা যাবে যে, আপনি সারাদিন অতিথিদের নিয়ে ব্যাস্ত রয়েছেন। ৩।উৎসবের দিনে হরেক পদের রান্না হবে, এটাই স্বাভাবিক। এগুলোর মধ্যে আপনার শিশুর পছন্দের খাবারগুলো থাকা চাই। ৫। অনেক অটিস্টিক শিশু তার খাবার বা খেলনা অন্য কাউকে ধরতে দেয় না বা কারো সাথে শেয়ার করে না। ব্যাপারটি অস্বস্তিকর হলেও শিশুর পছন্দের খাবার তার সামনেই অন্য কাউকে না দেয়াই ভাল। আপনার শিশু সম্পর্কে যারা জানেন, তারা আপনার এ ব্যাপারে মাইন্ড করবেন না নিশ্চয়ই। ৬। আমার মেয়েকে নতুন জামা পরালেই সে ভাবে যে এখন বুঝি বাইরে বেড়াতে যাব। তাই এ দিন আমরা যখন বাইরে বেরোই, তার কিছু আগেই তাকে নতুন জামা পরাই। ৭। দিনের একটা সময়, আপনার শিশু রেস্ট নেয়; হয়ত আপনিও তখন তার সাথে শুয়ে থাকেন। চেস্টা করবেন যেন শিশুটি তার ঐ বিশ্রামের একান্ত সময়টা পায়। অতিথিদের আগমনের সময়টা যেন সে সময়ে না হয়। খেয়াল রাখবেন যে, শিশুটি একদিন ডিস্টার্বড হয়ে গেলে সে তার নরমাল মোডে আসতে কয়েকদিন সময় নেয়। উৎসবের আনন্দ নিসন্দেহে একটা বিরাট ব্যাপার। তবে প্রতিদিন আপনার অটিস্টিক শিশুটি কিছু ছোট ছোট সাফল্য দেখায়। তার ছোট ছোট সাফল্যগুলো উৎসবের আনন্দের চেও বেশি আনন্দ দেয়। সবার সকল দিন উৎসবের আনন্দে কাটুক।

উপরে