ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮
অটিজম সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা

অটিজম এবং এ সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা

অটিজম এবং এ সম্পর্কে কিছু ভ্রান্ত ধারণা

“অটিজম” বা “অটিস্টিক” শব্দটার সাথে আমরা সবাই ইদানীং কম বেশি সবাই পরিচিত। তবে অটিজম আসলে কি- এ ব্যাপারে খুব অল্প সংখ্যক মানুষের পরিস্কার ধারণা আছে। এটি না জানার মূল কারণ হচ্ছে এ সংক্রান্ত তথ্য সবার কাছে পৌছানোর মাধ্যমের অভাব। অটিজম সম্পর্কে সাধারণভাবে কিছু ভুল ধারণা আমাদের সমাজে প্রচলিত।

গ্রামে কিছুদিন পূর্বে কিংবা বলা যেতে পারে এখনও মনে করা হয় অটিস্টিক শিশুরা ও ব্যাক্তিরা জিন বা ভুতের আছরের শিকার। কিংবা এও মনে করা হয় তারা পাগল। শুধু গ্রাম কেন শহরের অনেক স্থানে এই ধারনা বা এই চিত্র বিদ্যমান। অনেক শিক্ষিত লোকও এ বিষয় নিয়ে তাদের জ্ঞানকে অপ্রতুল মনে করেন। অনেক পরিবার বা ব্যাক্তি আছেন যারা অটিজম বা অটিস্টিক শব্দটির সাথে তখন পরিচিত হয়েছেন যখন তারা জানতে পেরেছেন যে তাঁদের পরিবারে বা তাঁদের কাছাকাছি কেউ এই অটিজম নামক সমস্যার মধ্যে অবস্থান করছে। অটিজম কি সমস্যা? হ্যাঁ এটা একটা সমস্যা। মনবিকাশগত সমস্যা। অনেকে এটাকে রোগ বলে অভিহিত করেন। কিন্তু  অটিজম কোনভাবেই রোগ নয়।

অটিজম কোন রোগ, বংশগত  বা মানসিক রোগ নয়, এটা স্নায়ুগত বা মানসিক  সমস্যা। এ সমস্যাকে ইংরেজিতে  নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডার   বলে। অটিজমকে সাধারণভাবে শিশুর মনোবিকাশগত জটিলতা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। অটিজমের লক্ষণগুলো একদম শৈশব থেকেই, সাধারণত তিন বছর থেকে প্রকাশ পেতে থাকে। অটিজমে আক্রান্তরা সামাজিক আচরণে দুর্বল হয়, পারস্পরিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে কম সক্ষম হয়। মানসিক সীমাবদ্ধতা ও একই কাজ বারবার করার প্রবণতা দেখা যায়। এই রোগে আক্রান্ত শিশু কারো সাথেই, সে সমবয়সী হোক কিংবা অন্য যে কোনো বয়সী কারো সাথে সামাজিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে না। নাম ধরে ডাকলেও সাড়া দেয় না। এরা অনেকেই আকার ইঙ্গিতে কথা বলতে পছন্দ করে।  এ ধরণের শিশু আপন মনে থাকতে পছন্দ করে। নিজের ইচ্ছের মত চলে। যখন যা করতে ইচ্ছে হয় তা করতে না পারলে এদের খিঁচুনি ভাব হয়। এরা কারো চোখের দিকে তাকায় না। কারো সাথে নিজের ব্যবহারের জিনিস পত্র শেয়ার করতে চায় না।  কারো দিকে তাকিয়ে হাসে না কিংবা আদর করলেও ততটা সাড়া দেয় না। অনেকে আবার আদর ও পছন্দ করে না। সাধারণভাবে অটিষ্টিক শিশুরা একই কথা বারবার বলে এবং একই কাজ বার বার করতে পছন্দ করে। তবে সকল অটিস্টিক শিশুরা একই রকম আচরন করবে তা ঠিক নয়।

অটিজম রোগ সম্পর্কে সাধারণত কিছু ভ্রান্ত ধারণা লক্ষ্য করা যায়। এসব ভ্রান্ত ধারনার কয়েকটি দেয়া হলো:

১. অনেক অভিভাবক মনে করেন, তাঁরা সন্তানকে বেশি সময় দেননি বলে তাঁর সন্তানের অটিজম হয়েছে। আবার অনেকে সান্ত্বনা দিয়ে থাকেন, শিশু দেরিতে কথা বলে বা ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে যাবে, যা সঠিক নয়। পিতা-মাতার দুর্বল অভিভাবকত্ব অটিজমের জন্য দায়ী নয়।

২. অটিজম একটি মানসিক রোগ। এখানে শারীরিক কোনো সমস্যা জড়িত নয়। অটিজমের সঙ্গে বিকাশগত অক্ষমতা ও নিওরোবায়োলোজিক্যাল ডিজঅর্ডার জড়িত।

৩. চিকিৎসা করালে অটিজমে আক্রান্তরা স্বাভাবিক হয়ে যাবে। এটি সাময়িক সমস্যা, বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সেরে যাবে। অটিজম কোনো সাময়িক সমস্যা নয়। মনে রাখতে হবে, এই ঘাটতি কখনো পুরোপুরি দূর হবে না। তবে ক্ষেত্রবিশেষে অটিজম আক্রান্তের সামাজিক আচরণের উন্নতি করা সম্ভব হয়।

৪. একই পরিবারে ভাইবোনদের মধ্যে একাধিক জনের অটিজম হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

৫. অটিজম আক্রান্ত সব শিশু/ব্যক্তির সমস্যা একই রকম। বাস্তবতা হলো, অটিজম-আক্রান্ত ব্যক্তিদের লক্ষণ ও উপসর্গ বিভিন্ন ধরনের হয়। একজনের সঙ্গে আরেকজনের মিল নেই।

৬. অনেকে মনে করেন, আক্রান্ত ব্যক্তিরা সবাই সুপ্ত প্রতিভার অধিকারী হয়। কখনো কেউ কেউ বিশেষ কোনো কাজে দক্ষতা দেখাতে পারে; কিন্তু এটা ব্যতিক্রমী ঘটনা। দেখা যায়, অটিজমে আক্রান্ত অনেক শিশুই বিভিন্ন প্রতিভা বা অন্য কোনো ক্ষেত্রে অসম্ভব প্রতিভাসম্পন্ন হওয়া দূরে থাক, খুব সাধারণ দৈনন্দিন কাজকর্মেও অন্যের ওপর নির্ভরশীল হয়ে থাকে।

এসব বিষয় ছাড়া আরও অনেক ধরনের ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে, যা মোটেও গুরুত্ব দেওয়া উচিত নয়। কেউ কেউ একে জ্বীন ভূত এর আছর জনীত প্রভাব বলেও মনে করে। কোনো শিশুর যদি ‘অটিজম’ সনাক্ত হয়, তাহলে এ ধরনের কথাবার্তা অগ্রাহ্য করার মানসিক শক্তি অর্জন করতে হবে। কারণ, নিউরনঘটিত যেকোনো সমস্যার উত্তরণ বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সময়সাপেক্ষ, পুরোপুরি সুস্থ হওয়াটাও অনিশ্চিত। সবার মনে রাখা প্রয়োজন, কোনো রকম জাদুকরি বা টোটকা চিকিৎসায় অটিজম সারে না।

(ছবিটি প্রতীকি অর্থে ব্যাবহার করা হয়েছে।)

উপরে