ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
শিশু বিকাশ

শিশুদের ভাষা শেখাতে এবং হাতের লেখা ভালো করতে বাবা-মা এর ভূমিকা

20fours Desk | আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৪:৪৭
শিশুদের ভাষা শেখাতে এবং হাতের লেখা ভালো করতে বাবা-মা এর ভূমিকা
আসুন জেনে নেয়া যাক শিশুদের ভাষা শেখাতে এবং শিশুর হাতের লেখা ভালো করতে বাবা-মাকে কী কী ভূমিকা পালন করতে হবে।
 
জন্মের পর থেকেই শিশুরা হাত-পা নাড়িয়ে হাসি-কান্নার মাধ্যমে তার সুবিধা-অসুবিধাগুলো জানিয়ে দেয়। এর কয়েক মাস পরই তাদের প্রয়োজনীয়তা প্রকাশের নিয়ম কিছুটা পরিবর্তন হতে থাকে। 
 
তখন থেকেই শব্দের প্রতি সচেতন হতে শেখে শিশুরা। এসময় কিছু উচ্চারণ করতে না পারলেও বাবা-মার কণ্ঠস্বর শুনতে পায় ও বুঝতে চেষ্টা করে। তখন থেকেই তারা শব্দ ভাণ্ডারে সাঁতারের জন্য পা বাড়ায়। তাই জন্মের কয়েক মাস পর থেকেই শিশুর সঙ্গে কথা বলা শুরু করে দিন। 
 
আপনি হয় তো ভাবছেন শিশুটি ছোট্ট, ও কী কিছু বঝবে নাকি!
 
একথা ঠিক যে একটি নির্দিষ্ট বয়সের আগে শিশুদের পক্ষে কথা বলা সম্ভব হয় না। কিন্তু আপনাদের নিশ্চয়ই জানা আছে কাউকে কথা বলতে দেখলে তবেই শিশুরা কথা বলতে শেখে। 
 
বিশেষজ্ঞদের মতে, অন্যদের মুখে কথা শুনলেই শিশুদের মস্তিষ্কে নতুন শব্দগুলো স্টোর হতে শুরু করে। এভাবেই এক সময়ে তাদের ভাষার পরিধি বেড়ে গেলে তারা কথা বলা শুরু করে দেয়।
 
যত কম বয়স থেকে সন্তানদের সঙ্গে কথা বলবেন, তত তাড়াতাড়ি সে কথা বলতে শিখবে। 
 
কারণ শিশুদের মস্তিষ্ক তখন অনেকটা ফাঁকা টেপের মতো হয়। তাদের সামনে যা ঘটনা ঘটতে থাকে তা সঙ্গে সঙ্গে রেকর্ড হতে থাকে। তাই তো মস্তিষ্কে অন্য বাজে কিছু ভর করার আগে আপনি ফাঁকা জায়গাটা শব্দ দিয়ে ভরিয়ে তুলুন।
 
তাহলে দেরি কেন? আসুন জেনে নেয়া যাক শিশুদের ভাষা শেখাতে বাবা-মাকে কী কী ভূমিকা পালন করতে হবে: 
 
শিশুর সঙ্গে কথা বলুন : শিশুটি ছোট্ট কথা বুঝবে না, এটা ভেবে চুপ করে বসে থাকবেন না। সে কথা বুঝতে পারুক আর না পারুক, শিশুর সঙ্গে প্রচুর কথা বলুন। শিশুর সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের গল্পের ছলে খেলার মাধ্যমে কথা বলুন। এতে সে দ্রুত কথা বলা শিখবে।
 
ভাষা শেখার দক্ষতা : বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সহজাত প্রবৃত্তির মাধ্যমেই শিশুরা নতুন ভাষা শিখে ফেলে। এক্ষেত্রে শব্দ বা ব্যাকারণের কোনো ভূমিকা থাকে না বললেই চলে। তাই তো আমরা আমাদের মাতৃভাষার গ্রামার না জানা সত্ত্বেও ছোট বেলা থেকে বলতে পারি। শিশুদের সঙ্গে কথা বললেও এই একই ঘটনা ঘটে। 
 
ভাষা শেখার পদক্ষেপ : ভাষা শেখার প্রথম পদক্ষেপ হল শোনা। নতুন কোনও কিছু শোনার পরেই কিন্তু আমরা তা উচ্চারণ করতে পারি। তাই তো বাবা-মারা শিশুর সামনে যত কথা বলবেন, তত তারা নতুন শব্দ শিখতে পারবে। তাই বাচ্চার সমানে কথা বলুন, দেখবেন অল্প দিনেই আপনার ছোট্ট শিশুর মুখে কেমন ভাষা ফুটে যাবে। তবে শিশুর সামনে প্রথমেই কঠিন শব্দ নয় ব্যবহার করবেন না।
 
শিশুর কান্নায় সাড়া দিন : শিশুর প্রথম যোগাযোগ মাধ্যম হচ্ছে কান্না। কথা শেখার আগ পর্যন্ত কান্নার মাধ্যমেই ক্ষুধা, ভয়, অসুস্থতা প্রকাশ করে শিশুরা। তাই এসময় বিরক্ত না হয়ে তাকে বোঝার চেষ্টা করুন।
 
একসঙ্গে অনেক ভাষা নয় : শিশুদের সামনে মাতৃভাষায় বা সহজ ভাষায় কথা বলবেন। অর্থাৎ শুরুতে তাদের একটা ভাষাই শেখাবেন। দুটো নয়! যদি আপনি নানা ভাষা মিলিয়ে কথা বলেন, তাহলে ছোট থেকেই শিশুর ভাষা নষ্ট হয়ে যাবে। আর এমনটা আপনার সন্তানের সঙ্গে হোক, নিশ্চয় আপনি চান না।
 
বাজে শব্দ উচ্চারণ করবেন না : শিশুদের সামনে যা কথা বলা হয়, তাই তারা শিখে ফেলে। তাই ওদের সামনে কখনই বাজে শব্দ ব্যবহার করবেন না। আপনি নিশ্চয় চাইবেন না ছোট থেকেই আপনার সন্তান খারাপ কথাগুলো শিখুক।
 
শিশু বড় হয়ে ওঠার পড়ে তাকে স্কুল এ ভর্তি করানো হয়।বাবুর হাতের লেখা ভালো করতে এই নিয়ম গুলো মেনে চলুন।
 
শিশুর হাতের লেখা সুন্দর করার  নিয়ম:
 
লেখার সময় বাচ্চাকে বেশি তাড়া দেবেন না। ধীরে ধীরে ভালো করে লেখা অভ্যাস করতে দিন। বিষয়টি অনেকটা ড্রয়িংয়ের মতো। তাই ছবি আঁকার মতো করেই উৎসাহ দিন ভালো হাতের লেখার জন্য। প্রথমেই বর্ণের মাত্রা দিতে শেখাতে হবে। কোনটাই মাত্রা আছে বা নেই, কোনটায় অর্ধেক রয়েছে তা তাকে দেখিয়ে দিন।একটি অক্ষর ছোট, আরেকটি বড় বা মোটা করে হাইলাইট করে যাবে না। বুঝিয়ে দিন শিশুকে।লেখার সময় বেশি কাটাকাটি করতে মানা করুন। তাহলে তা অপরিষ্কার দেখাবে। একটু ফাঁকা ফাঁকা করে লেখার অভ্যাস গড়ে তুলতে সাহায্য করুন। তাহলে লেখা পড়তে সুবিধে হবে।পেন্সিল ধরার নিময় শেখান। যাতে লেখার সময় ব্যালেন্স ঠিকঠাক থাকে। এক চান্সে সে ভালো অক্ষর লিখে ফেলবে এটা আশা করবেন না। না পারলে, প্রথমে আপনি লিখে দিন। তার উপর তাকে পেন্সিল বোলাতে বলুন। এভাবে অভ্যাস করাতে পারেন। প্রথমে লাইন টানা খাতা দিন। পুরো লাইন ভরে লিখতে বলুন। বুঝিয়ে দিন, লাইনের উপর থেকে নীচ পর্যন্ত যেন প্রতিটি অক্ষর সমানভাবে লেখা হয়। ছোটো বড় হলে, ফের ভালো করে লিখতে বলুন। লেখাপড়ার সময় সোজা হয়ে বসতে বলুন। ভালোভাবে না বসলে অনেক সময় লাইন উপর নীচ হয়ে যায়। দেখতে খারাপ লাগে।

উপরে