ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার সহজ কৌশল।

20fours Desk | আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৪:৩০
শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার  সহজ কৌশল।

অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় সামান্য রোগ শিশুদের জন্য মারাত্মক আকার ধারন করে থাকে। ডায়রিয়া কিংবা ঠাণ্ডা লেগে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুমৃত্যুর হার কমেনি এই আধুনিক চিকিৎসার যুগেও। এর প্রধান কারণ হচ্ছে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। শিশুদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল থাকার কারণে সামান্য রোগ মারাত্মক আকার ধারন করে দেহকে অনেক দুর্বল করে তোলে। ইমিউন সিস্টেম ভেঙে পরার দরুন রোগাক্রান্ত শিশুদেহ রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি পায় না। ফলশ্রুতিতে শিশুর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই অভিভাবকের উচিৎ সব সময় নিজের শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করার চেষ্টা করা। দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারলে দ্রুত রোগে আক্রান্তের সম্ভাবনা কমে যায় এবং রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার মত ক্ষমতা তৈরি হয়।

শিশুদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল থাকার কারণে সামান্য রোগ মারাত্মক আকার ধারণ করে দেহকে অনেক দুর্বল করে তোলে। ইমিউন সিস্টেম ভেঙে পরার দরুণ রোগাক্রান্ত শিশুদেহ রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি পায় না। ফলশ্রুতিতে শিশুর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই অভিভাবকের উচিৎ সব সময় নিজের শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করার চেষ্টা করা।

শিশুদের ওজন কম রাখার চেষ্টা করুন:

একটু মোটাসোটা নাদুস-নুদুস বাচ্চা দেখতে যতই ভালো লাগুক না কেন শিশুদের জন্য বাড়তি ওজন অনেক ক্ষতিকর। কারণ বাড়তি ওজনের শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কম থাকে।

বাচ্চাদের ওজন তার বয়স এবং উচ্চতা অনুযায়ী সঠিক রাখার চেষ্টা করতে হবে। এর জন্য বাচ্চাদের উপযোগী কিছু সহজ শারীরিক ব্যায়ামের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে যেমন, সাইকেল চালানো, সাতার কাঁটা, বিকেলে শারীরিক খেলাধুলা করা। এতে দেহের সাদা রক্ত কনিকা বৃদ্ধি পাবে এবং দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত হবে।

সঠিক খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলুন:

বাচ্চারা অনেক সময়ই হাবিজাবি খাবারের জন্য আবদার করে থাকে। যতই আদুরে হোক না কেন বাচ্চার দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অভিভাবককে বাচ্চার বাজে খাদ্যাভাস বদলানোর চেষ্টা করতে হবে।

প্রতিদিন খাবার তালিকায় ফল এবং শাকসবজি রাখার চেষ্টা করবেন। বাচ্চা খেতে না চাইলে জোর না করে তাকে ফলমূল এবং শাকসবজি একটু ভিন্নভাবে উপস্থাপন করতে পারেন। তাকে ছোটবেলা থেকেই ভালো খাদ্যাভ্যাসে গড়ে নিতে পারলে দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত হবে।

খাবারে চিনির পরিমাণ কমিয়ে দিন:

বেশি মাত্রায় চিনি জাতীয় খাবার ইমিউন সিস্টেম দুর্বল করে ফেলে। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। গবেষকদের মতে ১ চা চামচ চিনি ৪ ঘণ্টার জন্য ইমিউন সিস্টেম দুর্বল করে ফেলতে সক্ষম। তাই চিনি জাতীয় খাবার কমিয়ে দিন একেবারে। এতে করে সুস্থ থাকবে আপনার শিশু।

সঠিক ঘুমের অভ্যাস তৈরি করুন:

ঘুম খুব জরুরি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য। ঘুমের সময় দেহের ইমিউন সিস্টেম আপনাআপনি উন্নত হতে থাকে। বেশি রাত করে ঘুমানো এবং সকালে বেশি দেরি করে উঠা দেহের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল করে। এবং বাচ্চাদের জন্য ৯ ঘণ্টার কম ঘুম বেশ ক্ষতিকর। তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বাচ্চার ঘুমের সময় ঠিক রাখুন এবং প্রতিদিন ৯ ঘণ্টা ঘুমানোর অভ্যাস গড়ে তুলুন।

পরিষ্কার পরিচ্ছনতার ব্যাপারে শিক্ষা দিন:

বাচ্চাকে পরিষ্কার পরিচ্ছনতার শিক্ষা দিন। তাকে নিয়মিত হাত ধোয়া এবং গোসল করার ব্যাপারে উৎসাহী করে তুলুন ঘরোয়া শিক্ষায়। এতে করে সে ঘরের বাইরে স্কুলে যেয়েও খেলাধূলা করে, টিফিন খাবার আগে হাত ধোয়ার অভ্যাস বজায় রাখবে।

ঘরে গড়ে ওঠা এই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার শিক্ষা তার দেহে রোগ সংক্রামণেও বাধা দেবে। দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত হবে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

উপরে