ঢাকা, বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯
মাছের ডিম

মাছের ডিম পছন্দ করেন? জেনে নিন এর উপকারিতাগুলো।

20Fours Desk | আপডেট : ১১ মার্চ, ২০১৯ ২৩:০৭
মাছের ডিম পছন্দ করেন? জেনে নিন এর উপকারিতাগুলো।

মাছ আমাদের সবথেকে পছন্দের একটি খাবার। এজন্যই আমাদের বলা হয়ে থাকে মাছে ভাতে বাঙ্গালি। আর এই মাছে থাকা মাছের ডিম হলে তো কোনো কথা হবে না। মাছের ডিম আমাদের অনেক পছন্দের একটি খাবার। এটি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনই এর রয়েচে অনেক স্বাস্থ্যগুণ। এতে আছে ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি , আয়োডিন সহ নানা উপকারি উপাদান। যা নানাভাবে আমাদের শরীরের অনেক উপকার করে থাকে। কিন্তু কি সেই উপকার? তাহলে আসুন আজ জেনে নিই নিয়মিত মাছের ডিম খেলে আমাদের কি কি উপকার হয়ে থাকে তা সম্পর্কে।

মাছের ডিমের উপকারিতাঃ  

১। মাছের ডিমে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। আর আমরা জানি ভিটামিন এ আমাদের শরীরের জন্য কতটা উপকারি। বিশেষ করে আমাদের চোখের জন্য ভিটামিন এ সবচেয়ে বেশি উপকারি। ভিটামিন এ আমাদের রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে এবং চোখের  শুষ্কতা দূর করে। একই সাথে এটি চোখের বিভিন রোগ, যেমন- ক্যাটার্যানক্টস, গ্লুকোমা ইত্যাদি কমায়। এছাড়াও মাছের ডিম খেলে আমাদের ত্বককে শুষ্কতা এবং কেরাটিনাইজেশন থেকে রক্ষা করে এবং আমাদের জরাজীর্ন টিস্যু কে নতুন টিস্যু দিয়ে স্থানান্তর করে সুস্বাস্থ্যকর হাঁড় এবং দাঁত গঠনে সাহায্য করে।

২। মাছের ডিম খেলে আমাদের রক্ত পরিষ্কার হয় এবং এটি আমাদের রক্তে  হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে। কারণ এতে আছে আয়োডিন। আর আমরা স্কলেই জানি আয়োডিনের উপকারিতা। একই সাথে মাছের ডিম আমাদের শরীরে  থাইরক্সিন নামক হরমোন তৈরীতে সাহায্য করে থাকে। এটি মানব দেহে যে কোন রাসায়নিক পরিবর্তনে জন্য সাহায্য করে। গ্রহণকৃত খাবার হজমশক্তি, আত্মীকরন, শোষণ, সংগ্রহণ ও মল নিঃসরণ সহয়তা করে। এছাড়াও নিয়মিত মাছের ডিম খেলে অ্যানিমিয়া রোগ থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

৩। মাছের ডিম খেলে আমাদের হাড় শক্ত হয়। একই সাথে এটি নিয়মিত খেলে আমাদের অন্ত্রে ক্যালসিয়ামের শোষণ বাড়ায়, রক্ত প্রবাহে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়াও মাছের ডিমে থাকা বেশ কিছু উপকারি উউপাদান আমাদের শরীরে ব্যাথানাশক হিসেবে কাজ করে অর্থাৎ অ্যান্টি-ইমফ্লেমেটারি উপাদান যে কোনো ধরনের প্রদাহ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই এটি খেলে আমাদের শরীরের ব্যাথাও অনেক কমে যায়। একই সাথে এটি আমাদের দাঁতের সুস্থ্যতার জন্য অনেক উপকারি।

৪। যাদের হার্টের অসুখ আছে আছে তাদের জন্য মাছের ডিম অত্যান্ত উপকারি। কিছু উপাদান রয়েছে যা খারাপ কোলস্টেরলের মাত্রা কমানোর মধ্যে দিয়ে হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমায়। সেই সঙ্গে শরীরের প্রতিটি কোণায় যাতে ঠিক মতো রক্ত পৌঁছে যেতে পারে সেদিকেও খেয়াল রাখে। মাছের ডিম খেলে আমাদের হৃদপিণ্ডের কর্মক্ষমতা বাড়েএবং একই সাথে হঠাৎ হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কাও হ্রাস পায়।

৫। মাছের ডিমে আছে লাইনোলেনিক অ্যাসিড।যা আমাদের শরীরে ক্যান্সার সেল জন্ম নেয়ার আশঙ্কা একেবারে কমিয়ে দেয়। ফলে ক্যান্সারের মতো মারণ ব্যাধি রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। বিশেষ করে স্টোমাক এবং কোলন ক্যান্সারকে দূরে রাখতে মাছের ডিম অনেক উপকারি। এছাড়াও মাছের ডিমে খেলে স্মৃতিশক্তি বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে মনোযোগ বৃদ্ধি এবং সার্বিকভাবে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতার উন্নতিতেও সাহায্য করে।

উপরে