ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮
ইপসম লবণ

অনেক উপকারি ইপসম লবণ

20fours Desk | আপডেট : ৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২২:০২
অনেক উপকারি ইপসম লবণ

মূলত ম্যাগনেসিয়াম সালফেট কে ইপসম লবণ বলা হয়। এই লবন ঠান্ডা পানিতে কম দ্রবণীয় কিন্তু ফুটন্ত পানিতে অধিক দ্রবণীয়। সাধারণত ক্রীড়াবিদরা এই ইপসম সল্ট ব্যবহার করে থাকেন। আবার বাগানিরা উদ্ভিদের বৃদ্ধিতে এই লবণ গাছের গোড়ায় প্রয়োগ করেন। ওষুধ শিল্পে এই লবণ বহুল ভাবে ব্যবহৃত হয়। এই ইপসম লবণ আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যও অনেক উপকারী। ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ এই লবণ খেলে আমাদের শরীরের কি কি উপকার হতে পারে চলুন জেনে নিই।

ইপসম লবণের উপকারিতাঃ

১। ম্যাগনেসিয়াম আমাদের দেহের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি খনিজ উপাদান। ম্যাগনেসিয়ামে অভাবে আমাদের যে রোগ হয়ে থাকে তা হলো ‘হাইপোম্যাগনেসেমিয়া’। আমাদের দেহের তিন শতাধিক পাচক রস নিয়ন্ত্রণ করে ম্যাগনেসিয়াম। একই সাথে হৃদরোগ, স্ট্রোক, আর্থ্রাইটিস, অস্টেওপোরোসিস, ক্রনিক ফ্যাটিগ সিনড্রোম, হজমের সমস্যা কমাতেও ম্যাগনেসিয়ামের গুরুত্ব অপরিসীম। আর এই ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায় ইপসম লবণে।এই লবণ মেশানো পানিতে দুই পা কিংবা শরীর ভিজিয়েই ম্যাগনেসিয়াম সংগ্রহ করা সম্ভব।  

২। বর্তমান সময়ে সবচেয়ে একটি মারাত্বক ব্যাধি হলো মানসিক অবসাদ বা স্ট্রেস। একে বলা হয়ে থাকে নীরব ঘাতক। এর ফলে একজন মানুষের শারীরিক এবং মানসিক ভাবে মারাত্বক ক্ষতি হয়ে থাকে। আর এই মানসিক অবসাদের অন্যতম একটি কারণ হলো শরীরে ম্যাগনেসিয়ামে অভাব। ইউনিভার্সিটি অব নর্থ ক্যারোলিনার এক গবেষণায় বলা হয়, ম্যাগনেসিয়ামের অভাবে মানসিক প্রশান্তি নষ্ট হয়। আর এই নিউরোসাইকিয়াট্রিক ডিস-অর্ডারের চিকিৎসায় ইপসম সল্ট দারুণ কার্যকরী। এজন্য অন্তত সপ্তাহে একদিন এই লবণ মেশানো পানি দিয়ে গোসল করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা।

৩। ইপসমের সালফেট বা ইপসম লবণ আমাদের দেহ থেকে সব ধরনের দূষিত উপাদান বের করে দিতে দারূন কাজ করে। আমাদের কোষের ‘হেভি মেটাল’ বিষ তাড়াতে এই লবণ বেশ শক্তিশালী। আমাদের ত্বকে অসংখ্য ক্ষুদ্র ছিদ্র থাকে। এগুলো মেমব্রেনের মতো কাজ করে। গোসলের পানিতে এই লবণ থাকলে ‘রিভার্স অসমোসিস’ ঘটে। এ পদ্ধতিতে ত্বকের ভেতর থেকে ক্ষতিকর লবণ ও দূষিত উপাদান বের হয়ে আসে। এজন্য মাসে একদিন গোসলের পানি দুই কাপ ইপসম সল্ট নিয়ে ৪০ মিনিট শরীর চুবিয়ে রাখতে হবে। এতে  প্রথম ২০ মিনিটে ক্ষতিকর উপাদান বের হয়ে যাবে এবং পরের ২০ মিনিটে প্রয়োজনীয় খনিজ দেহে প্রবেশ করবে।

৪। কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো যন্ত্রণাদায়ক একটি সমস্যা থেকে ইপসম সল্ট দারূন কার্যকরী একটি প্রাকৃতিক উপায়। এটি খুব দ্রুত এই সমস্যা কমিয়ে ফেলতে পারে। এই লবণ খাওয়া হলে এর রেচক উপাদান আমাদের গ্রহনকৃত খাদ্যকে খুব দ্রুতে হজমে সাহায্য করে এবং আমাদের অন্ত্রে পানির পরিমাণ বৃদ্ধি করে। আর এর ফলে বর্জ্য বের করে দেওয়ার কাজটি অনেক সহজ হয়ে আসে।

৫। আমাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে হওয়া ব্যাথা কমাতে ইপসম সল্ট অনেক উপকারী। এটি আসলে আমাদের ব্যাথা সৃষ্টির মূলে থাকা ইনফ্লামেশন প্রতিরোধ করে আমাদের শরীরের ব্যথা নাশ করে থাকে। এজন্য সপ্তাহে একদিন ইপসম লবণ মিশ্রিত হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করতে হবে। আর এতেই আমাদের শরীরের সমস্ত ব্যাথা একদম কমে যাবে। এছাড়াও অ্যাজমার সমস্যা কমাতে এই লবণ অনেক উপকারি।

উপরে