ঢাকা, বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯
কোলেস্টেরল থেকে বাঁচতে

কোলেস্টেরল থেকে বাঁচতে

20Fours Desk | আপডেট : ২৯ জুন, ২০১৯ ১৩:৪৪
কোলেস্টেরল থেকে বাঁচতে

কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বিজাতীয়, তৈলাক্ত স্টেরয়েড যা কোষের ঝিল্লি বা (সেল মেমব্রেনে)-এ পাওয়া যায় এবং যা সব প্রাণীর রক্তে পরিবাহিত হয়। স্তন্যপায়ী প্রাণীদের সেল মেমব্রেনের এটি একটি অত্যাবশ্যক উপাদান. এই উপাদান মেমেব্রেনের মধ্য দিয়ে তরল পদার্থের ভেদ্যতা সচল রাখে এবং তার তারল্য বজায় রাখে.এছাড়াও ্কোলেস্টেরল একটি জরুরি প্রিকার্সার মলিকিউল যা বাইল আসিড, স্টেরয়েড হরমোন এবং স্নেহজাতীয় পদার্থে দ্রাব্য ভিটামিনের জৈব সংশ্লেষ ঘটায়.কোলেস্টেরল সবচেয়ে জরুরি স্টেরল যা প্রাণীদেহে সংশ্লেষিত হয়. স্বাভাবিক মান বজায় থাকলে কোলেস্টেরল দেহের জন্য সব উপকারী জিনিস করতে থাকে।তবে এই মাত্রা বেড়ে গেলে করোনারি ধমনী দিয়ে রক্ত চলাচল ক্ষীণ হয়ে যায়। ফলে করোনারি হৃদরোগ হয়। এছাড়া স্ট্রোক এবং আলঝাইমার রোগেরও ঝুঁকিও বেড়ে যায়। যদি সঠিক সময়ে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানো না যায় তাহলে তা নানা ভাবে প্রাণঘাতী প্রমাণিত হতে পারে। ফলে এর থেকে সাবধানে থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।তাইতো আজকের লেখায় জানবো কোলেস্টেরল থেকে বাঁচতে সবুজ চা পানের গুণ।

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক কোলেস্টেরল থেকে বাঁচতে সবুজ চা পানের গুণঃ

বিভিন্ন পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, সবুজ চা (গ্রিন টি) এর ভেতরে রক্তের ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল কমানোর উপাদান রয়েছে। দিনে মাত্র পাঁচ কাপ সবুজ চা পান করলে ২৫ শতাংশ কোলেস্টেরল ও রক্তচাপ কমে যেতে পারে। এতে রক্ত পরিস্কার হয়, দূর হয় রক্তের জমাট বাঁধা। এছারাও হৃদযন্ত্রকে  সুরক্ষা দেয় সবুজ চা। সবুজ চায়ে থাকে পর্যাপ্ত ফলিক অ্যাসিড। ফলিক অ্যাসিড হার্টের সমস্যা ও ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। আর দেরী না করে সবুজ চা সেবন করুন এবং হৃৎপিন্ড  রক্ষা করুন।

এছাড়াও আরোও কিছু খাবার রয়েছে কোলেস্টেরলের মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে,

মিষ্টি হিসাবে চিনির চেয়ে মধু খাওয়া সবসময় উপকারী। কারণ মধুতে থাকে এমন কিছু উপাদান যা কোলেস্টেরলের মাত্রাকে কমিয়ে দেয়, যা চিনি খেলে বেড়ে যায়।
সকালের নাশতায় ভুট্টা বা যবের তৈরি ওটমিল বা কর্নফ্লেক্স হতে পারে একটি আদর্শ খাবার। এতে করে দিনের শুরুতেই ১ থেকে ২ গ্রাম আঁশ খাওয়া হয়ে যাবে, যা অন্ত্রে কোলেস্টেরল শোষণে বাধা দেবে।

প্রতিদিন এক মুঠো বাদাম আপনার রক্তে ক্ষতিকর চর্বি বা কম ঘনত্বের লিপিডের (এলডিএল) মাত্রা ৫ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে পারে। এ ছাড়া বাদাম খেলে পাবেন ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

শরীরের খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে সহায়তা করে সয়াবিন। বৃদ্ধি করে ভালো কোলেস্টেরল। মানুষের ধমনীতে কোলেস্টেরলের যে জারন হয় তাতে বাধা দেয় সয়াবিন।

এটা প্রমানিত যে, বার্লি কোলেস্টেরলের মাত্রা ১৫ শতাংশ কমিয়ে দিতে পারে। এতে আছে বিটা গ্লকন যা এক প্রকার দ্রবণীয় ফাইবার। এটি কোলেস্টেরল ও অন্ত্রের চর্বি দূর করে। শরীর থেকে মেদ অপসারণ করে দূর করে কোলেস্টেরল।

এছাড়াও সবুজ পাতা ও ডাঁটাসুদ্ধ সবজি, যেমন বিভিন্ন ধরনের শাক এবং খোসাসহ ফলমূলে (যেমন: পেয়ারা, আপেল) রয়েছে অন্ত্রের চর্বি শোষণ কমানোর উপাদান। প্রতিদিন এ ধরনের খাবার আপনার রক্তে এলডিএলের মাত্রা ১০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে পারে বলে জানা গেছে।

উপরে