ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৯
লো ব্লাড প্রেসার!

লো ব্লাড প্রেসার! জেনে নিন কি করবেন।

20fours Desk | আপডেট : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১১:৪৫
লো ব্লাড প্রেসার! জেনে নিন কি করবেন।

বর্তমানে রক্তচাপ বা ব্লাড প্রেসা্রে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলছে। আসলে আমাদের খাওয়া-দাওয়াই মূলত এর জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী। রক্তচাপ বা ব্লাড প্রেসার দুই রকমের হয়ে থাকে। উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেয়ার এবং নিন্ম রক্তচাপ বা লো ব্লাড প্রেসার। হাই ব্লাড প্রেসারের কথা আমরা সবাই শুনে থাকলেও লো ব্লাড প্রেসার বা নিন্ম রক্তচাপকে কেউ তেমন একটা গুরুত্ব দেন না। অনেকেই মনে করেন দুর্বল স্বাস্থ্য যাঁদের, তাঁরা নিম্ন রক্তচাপে ভুগে থাকেন। এটা আসলে সত্য নয়। যেকেউ এ সমস্যায় ভুগতে পারেন। আসলে আমাদের রক্তচাপ ৯০/৬০ হলে বা এর আশপাশে হলে তাকে নিম্ন রক্তচাপ বলা হয়। আসুন তবে জেনে নিই নিন্ম রক্তচাপ বা লো ব্লাড প্রেসার হলে আমাদের কি রকম শারীরিক সমস্যা দেখা দেয় এবং আমাদের কি করা উচিত।

লক্ষণঃ

নিন্ম রক্তচাপ বা লো ব্লাড প্রেসার হলে সাধারণত মাথা ঘোরা বা মাথা ঘুরে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, বসা বা শোয়া থেকে হঠাৎ উঠে দাঁড়ালে মাথা ঘোরা কিংবা ভারসাম্যহীনতা, চোখে অন্ধকার দেখা বা চোখে ঝাপসা দেখা, শারীরিক দুর্বলতা এবং মানসিক অবসাদগ্রস্ততা, কোনো কিছুতে মনোযোগ দিতে না পারা, ঘন ঘন শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া বা হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, খুব বেশি তৃষ্ণা অনুভূত হওয়া, অস্বাভাবিক দ্রুত হৃৎস্পন্দন, নাড়ি বা পালসের গতি বেড়ে ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যেতে পারে। সাধারণত সিস্টোলিক রক্তচাপ ৯০ মি. মি. মার্কারি ও ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ ৬০ মি. মি. মার্কারির নিচে হলে

নিম্ন রক্তচাপ হলে যা করবেনঃ

১। সাধারণত লো ব্লাড প্রেসার বা নিন্ম রক্তচাপের অন্যতম একটি কারণ হলো ঠিকমতো বা সময়মতো খাবার না খাওয়া। তাই সময়মত খাবার খেতে হবে। এছাড়াও ডায়রিয়া বা অত্যধিক বমি হওয়া, ম্যাল অ্যাবসরবশন বা হজমে দুর্বলতা, কোনো দীর্ঘমেয়াদি রোগে আক্রান্ত থাকা,  শরীরে হরমোনজনিত ভারসাম্যহীনতা,  রক্তশূন্যতা, পানিশূন্যতা ইত্যাদি কারণে লো ব্লাড প্রেসার হয়ে থাকে।

২। যদি কেউ হঠাৎ করেই নিন্ম রক্তচাপ বা লো ব্লাড প্রেসারে ভুগে থাকে তাহলে তার ব্লাড প্রেসার স্বাভাবিক করতে সোডিয়াম অনেক বেশি উপকারি। এজন্য একগ্লাস পানিতে দুই চামচ লবণ মিশিয়ে খেলে ব্লাড প্রেসার স্বাভাবিক হতে শুরু করবে।

৩। হঠাৎ করে লো প্রেসার দেখা দিলে এক কাপ কফি খেতে পারেন। এছাড়াও স্ট্রং কফি, হট চকোলেট, কমল পানীয়সহ যে কোনো ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পানীয় দ্রুত ব্লাড প্রেসার বাড়াতে সাহায্য করে। আর যারা অনেক দিন ধরে এ সমস্যায় ভুগছেন, তারা সকালে ভারী নাশতার পর এক কাপ কফি খেতে পারেন।

৪। লো ব্লাড প্রেসার বা নিন্ম রক্তচাপ এড়িয়ে চলতে প্রতিদিন খাবারের সাথে সামান্য কাঁচা লবণ খাওয়ার অভ্যাস করুন। দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় গ্লুকোজ ও স্যালাইন রাখুন। প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল জাতীয় খাবার খেতে হবে।

৫। হঠাৎ করে ব্লাড প্রেসার কমে গেলে অনেকক্ষণ একই স্থানে বসে বা শুয়ে থাকবেন না। অনেকক্ষণ ধরে বসে বা শুয়ে থাকার পর ওঠার সময় সাবধানে ও ধীরে ধীরে উঠুন। পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করুন। ঘন ঘন হালকা খাবার খান। বেশি সময় খালি পেটে থাকলে রক্তচাপ আরও কমে যেতে পারে।

উপরে