ঢাকা, বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯
সি ফুড অ্যালার্জি

সি ফুড অ্যালার্জি এড়াতে যা করবেন

20Fours Desk | আপডেট : ১৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০৮:৫০
সি ফুড অ্যালার্জি এড়াতে যা করবেন

অ্যালার্জি বলতে পরিবেশে অবস্থিত কতগুলি বস্তুর উপস্থিতিতে কিছু কিছু ব্যক্তির দেহের প্রতিরক্ষাতন্ত্রের অতিসংবেদনশীলতার কারণে সৃষ্ট কতগুলি বিরূপ প্রতিক্রিয়াকে বুঝায়। অ্যালার্জি উপসর্গ গুলো হলো চোখ লাল হয়ে যাওয়া, চুলকানিযুক্ত ফুসকুড়ি, রাইনোরিয়া বা নাক দিয়ে অনবরত পানি পড়া, শ্বাসকষ্ট অথবা ফুলে যাওয়া। অনেক কারনেই অ্যালার্জি সমস্যা হয়ে থাকে তারমধ্যে সি ফুড অ্যালার্জি একটি। ফুড অ্যালার্জির মধ্যে যা আমাদের সবচেয়ে বেশি ভোগায় তা হল সি ফুড অ্যালার্জি। বহু মানুষই রয়েছেন যাদের শরীরে সি ফুড সহ্য হয় না।সাধারণত অপরিষ্কার ও সহজে সংক্রমিত হওয়ার কারণেই এমনটা হয়ে থাকে। সি ফুড কেনা, সংরক্ষণ ও রান্নার ব্যাপারে কিছু সাধারণ নিয়ম মেনে চললে অ্যালার্জি এড়িয়ে চলা যায়।

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক সি ফুড অ্যালার্জি এড়াতে যা করবেনঃ

(১) টাটকা মাছ কিনুন বা ফ্রোজন, বড় মাছের বাজার বা বিশ্বাসযোগ্য সুপারমার্কেট, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর থেকে কিনুন।

(২) বাজার থেকে কেনা কাঁচা, টাটকা সামুদ্রিক মাছ বেশিক্ষণ ফেলে রাখবেন না। বাড়ি এসেই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ফ্রিজে ঢুকিয়ে রাখুন।

(৩) যদি সুপার মার্কেট থেকে ফ্রোজেন সি ফুড কেনেন তা হলে খেয়াল রাখবেন সেগুলো যেন ভাল করে প্রিজার্ভ করা হয়। ৪০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের নীচে প্রিজার্ভ করা সি ফুড কিনুন।

(৪) অনেক সময়ই ফ্রিজে আমরা খাবার অগোছালো করে রাখি। রান্না করা ও কাঁচা মাছ পাশাপাশি রাখলে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা থাকে।

(৫) কাঁচা ও টাটকা সামুদ্রিক মাছ ভাল রাখার জন্য সেলোফোন র‌্যাপ করে বা এয়ার টাইট কন্টেনারে ফ্রিজে রাখুন।

অবশ্যই কাঁচা মাছ কখনই রান্না করা মাছের কাছাকাছি রাখবেন না।এই ছোত ছোত টিপস গুলো অনুসরণ করে আপনিও মুক্তি পেতে পারেন  সি ফুড অ্যালার্জি হতে।

উপরে