ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
যেভাবে হেডফোন ব্যবহার করলে কমবে বিপদ

যেভাবে হেডফোন ব্যবহার করলে কমবে বিপদ

20Fours Desk | আপডেট : ১২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০২
যেভাবে হেডফোন ব্যবহার করলে কমবে বিপদ

অফিস থেকে বাড়ি ফেরার পথে যখন জ্যামে বসে থাকতে হয়, তখন হেডফোন কানে লাগিয়ে গান শোনাই হয়ে ওঠে বিরক্তি কাটানোর একমাত্র উপায় তাই না? গান শোনা, ভিডিও দেখা কিংবা চ্যাটিং এর জন্য আজকাল আমরা হেডফোনের উপরই  ভরসা করি। সারাক্ষণ কানে হেডফোন ব্যবহার আপনার জন্য বিপাকের কারণ হতে পারে। তাই প্রয়োজন কিছু নিয়ম মেনে এর ব্যবহার করা এতে করে জীবন ও কান দুই-ই বাঁচবে। এছাড়া প্রায়ই কানে হেডফোন লাগিয়ে পথে-ঘাটে হাঁটায় মৃত্যু হচ্ছে অনেকের। তাই এ বিষয়ে সচেতনতা হওয়া জরুরি আর তাই হেডফোন ব্যবহারের কিছু নিয়ম মানলে এ সংক্রান্ত সমস্যার কিছুটা হলেও সমাধান পেতে পারেন। আর আজকের লেখাতে মুলত আপনাদের জন্য এমনি কিছু হেডফোন ব্যবহারের নিয়ম উল্লেখ করা হবে।

চলুন তাহলে দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক যেভাবে হেডফোন ব্যবহার করলে কমবে বিপদ তার কিছু কৌশলঃ

(১) মোবাইল কোম্পানিগুলো নির্দিষ্ট মডেলের জন্য নির্দিষ্ট হেডফোন তৈরি করে। ফোন থেকে বেরোনো রশ্মির তরঙ্গ, কম্পন ইত্যাদির উপর অঙ্ক কষেই ইয়ারফোনের তরঙ্গ তার ক্ষমতা ইত্যাদি ঠিক করা হয়। আমাদের অনেকেরই অভ্যাস আছে হেডফোন খারাপ হলেই বাজার থেকে কমদামে হেডফোন কেনার। যা কানের জন্য খুব ক্ষতিকর। তাই হেডফোন খারাপ হলে ওই মডেলেরই হেডফোন কিনে ব্যবহার করুন।

(২) হাঁটার সময় বা রাস্তা-লাইন পেরোনোর সময় একেবারেই নয়। বাইরে বেরিয়ে গান শুনতে হলে যানবাহনে যাত্রার সময় বা এক জায়গায় বসে শুনুন। তবে গাড়ি চালানোর সময় কখনোই হেডফোন ব্যবহার করবেন না।

(৩) সর্বোচ্চ ভলিয়্যুমে গান শুনলে কানের পর্দার খুব ক্ষতি হয়। যেহেতু এই শব্দ সরাসরি কানে প্রবেশ করে, তাই মোবাইলের ভলিয়্যুম কখনওই মাঝামাঝির বেশি রাখবেন না। গান চালিয়ে দেখে নিন ওই ভলিয়্যুমে বাইরের চিৎকার, আওয়াজ এ সবও কানে পৌঁছায় কি না। না হলে আওয়াজ আরও কমান।

এছাড়া একটানা ৩০ মিনিটের বেশি হেডফোন ব্যবহার করবেন না। মোবাইলে কোনও সিনেমা দেখতে হলে ৩০ মিনিট পর পর কিছুক্ষণের জন্য বিরতি নিন। পাঁচ-দশ মিনিট কানকে বিশ্রাম দিন। এই কিছু নিয়ম মেনে চললে বিপদ কমানো কিছুটা সম্ভব।

উপরে