ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
অতিরিক্ত ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহার

অতিরিক্ত ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহার করছেন? ঠিক হচ্ছে না।

20fours Desk | আপডেট : ২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৯:২৮
অতিরিক্ত ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহার করছেন? ঠিক হচ্ছে না।

বর্তমান সময়ে ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়। একদম বাচ্চা থেকে শুরু করে বয়স্ক, সবার এটিকে অনেক পছন্দ করে থাকেন। বিশেষ করে তরুণদের কাছে এখন এটি একটা ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে। রোজ দাঁত মাজার মতোই বা চুল আঁচড়ানোর মতোই কোথাও বেড়োনোর আগে আমরা ডিওডোরেন্ট গায়ে লাগিয়ে নিই| কিন্তু আমরা এই ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে সম্পর্কে কতটুকু জানি? বর্তমানে বাজারে বিক্রি হওয়া এসব ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে সবই কিন্তু সিন্থেটিক এবং কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি। একই সাথে খুবই টক্সিক বা ক্ষতিকারক। অধিক মাত্রায় এসব ব্যবহারের ফলে আমাদের ত্বক এতে থাকা কেমিক্যাল শুষে নেয় এবং এর ফলে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ক্ষতি হতে পারে। আসুন আজ জেনে নিই অধিক মাত্রায় এসব ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহারের ফলে আমাদের কি কি ক্ষতি হয় তা সম্পর্কে।

অতিরিক্ত ডিওডোরেন্ট বা বডি স্প্রে ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকঃ

১। সাধারণত ডিওডোরেন্টের মূল উপাদানই হলো প্রপেলিন গ্লাইকল। যা অধিক ব্যবহারের ফলে আমাদের ত্বকের জন্য মারাত্বক ক্ষতি করে থাকে। বিশেষ করে বেশি মাত্রায় ডিওডোরেন্টে ব্যবহারের ফলে আমাদের ত্বকে র‍্যাশ বা ছোট ছোট লাল গুটি বের হতে পারে কিংবা ত্বক জ্বালা করতে পারে। একই সাথে এটি আমাদের সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমের ক্ষতি করে থাকে।

২। ডিওডোরেন্টের মূল উপাদানই প্রপেলিন গ্লাইকল হলো একধনের নিউরোটক্সিক কম্পাউন্ড। যা অধিক ব্যাবহারের ফলে বিভিন্ন ধরনের অ্যালাজ্যিক সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়াও এটি অধিক ব্যবহারের ফলে আমাদের রোমকূপ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ঘামের সাথে শরীর থেকে অনেক ক্ষতিকারক টক্সিনস বেরিয়ে যায়। কিন্তু রোমকূপ বন্ধ থাকলে তা শরীরের ভিতর জমতে থাকে। এতে শরীরের কোষ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এমনকি ক্যানসারের আশঙ্কাও থাকে।

৩। বাজারে কিনতে পাওয়া ডিওডোরেন্টের অন্যতম একটি উপদান হলো অ্যালুমিনিয়াম | যা আমাদের শরীরের জন্য বেশ ক্ষতিকর। এর অধিক ব্যবহারের ফলে বিভিন্ন শারীরিক অসুস্থতা দেখা যেতে পারে। বিশেষ করে ডিমনেশিয়া এবং অ্যালঝাইমারস ডিজিজ| বারবার ডিওডোরেন্টের গন্ধ শুকলে অ্যাজমাও হতে পারে|

৪। বেশিরভাগ ডিওডোরেন্টে প্রিজারভেটিভ হিসেবে প্যারাবেনস ব্যবহার করা হয়| যা আমাদের শরীরে হরমোনাল ইমব্যালেন্স করতে পারে। বিশেষ করে এর থেকে মেয়েদের অনিয়মিত ঋতুচক্রের সমস্যা তৈরি হয় এবং মেয়েরা উপযুক্ত বয়েসের আগেই ঋতুবতী হয়ে যেতে পারে| ডিওডোরেন্টে সাধারণত প্রপিপ্যারাবেনস, ম্যাথাপ্যারাবেনস, ইথিপ্যারাবেনস ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়, যা বেশ ক্ষতিকর।

৫। বেশি মাত্রায় ডিওডোরেন্টে ব্যবহারের ফলে অনেক সময় আমাদের অনেকের শ্বাসকষ্ট হতে পারে। একই সাথে এটি হাঁপানি রোগিদের জন্য বেশ ক্ষতিকর। এছাড়াও এর অধিক ব্যবহারের ফলে আমাদের ত্বকের একদম নিচে থাকা ঘামগ্রন্থিরও ক্ষতি হতে পারে।

উপরে