ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮
চুইং গাম

চুইং গাম খেলে কি হয়? জানেন তো?

20fours Desk | আপডেট : ১৫ নভেম্বর, ২০১৮ ০৭:১৪
চুইং গাম খেলে কি হয়? জানেন তো?

চুইং গাম আমাদের সবার খুব পছন্দের একটি জিনিস। বিশেষ করে তরুণদের কাছে এটি ব্যাপক জনপ্রিয়। রাবারের মতো চ্যাটচ্যাটে এই খাবারটি সারাবিশ্বে ব্যাপক জনপ্রিয়। সারা বিশ্বজুড়ে বছরে প্রায় ৩৭৪ বিলিয়ন চুইং গাম বিক্রি হয় এবং যা প্রায় ১৮৭ বিলিয়ন ঘন্টা নষ্ট করে চিবিয়ে থাকি আমরা। এ থেকেই বোঝাই যাচ্ছে এর জনপ্রিয়তা কতটা। কিন্তু এখন কথা হলো চুইং গাম কি খাওয়া কি ঠিক? এত দিন আমরা সবাই জেনে এসেছি যে চুইং গাম আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কিন্তু এখন গবেষকরা বলছে উল্টো কথা। চুইং গাম খেলে আমাদের তো কোনো ক্ষতি তো হয়ই না, বরং উপকারিই হয়ে থাকে। কি শুনে অবাক হচ্ছেন? আসুন তবে জেনে নিই চুইং গাম খেলে আমাদের কি কি উপকার হয়ে থাকে?

চুইং গামের উপকারিতাঃ

১। ব্রেন পাওয়ার বাড়েঃ

চুইং গাম খেলে আমাদের ব্রেন পাওয়ার অনেক বৃদ্ধি পায়। কি শুনে চোখ কপালে উঠে গেছে নাকি? আসলেই কি এই কথা সত্য? এর উত্তর হলো, হ্যাঁ। আসলে চুইং গাম খেলে আমাদের আমাদের ব্রেনে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের সরবরাহ অনেক বেড়ে যায়। আর এর ফলেই আমাদের ব্রেন পাওয়ার অনেক বেড়ে যায়। এছাড়াও চুইং গাম খাওয়ার সময় আমাদের মস্তিষ্কে শর্করার সরবরাহ বেড়ে যায়। ফলে আমাদের স্মৃতিশক্তি বাড়তে থাকে। একই সাথে ব্রেনের নিউরাল নেটওয়ার্ক এত মাত্রায় অ্যাকটিভ হয়ে যায় যে অ্যালার্টনেস এবং মনোযোগ অনেক বেড়ে যায়।

২। বদ হজম কমায়ঃ

আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা প্রায় সময় বদ হজমের মত সমস্যায় ভুগে থাকেন। এছাড়াও অনেকের খাওয়ার পর গ্যাস হয়ে থাকে বা বেশি করে ঢেঁকুর উঠে থাকে। এ সমস্যা কমাতে চুইং গাম কিন্তু অনেক কাজের। এজন্য খাওয়ার পরপরই একটি চুইং গাম চিবুতে পারেন। আসলে চুইং গাম খেলে গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স ডিজিজ বা টক ঢেকুর হওয়া অনেক কমে যায়। একই সাথে এটি চাবানোর সময় আমাদের সময় স্যালাইভা উৎপাদন বেড়ে যায়, যা খাবার হজম হতে সাহায্য করে।

৩। কনস্টিপেশন কমায়ঃ

বেশ কিছু গবেষনায় পাওয়া গেছে যে, চুইং গাম খেলে আমাদের কনস্টিপেশনের সমস্যা অনেক কমে যায়। আসলে চুইং গাম চিবুলে আমাদের গ্রহনকৃত খাবার খুব ভালোভাবে হজম হয়ে থাকে। আর এর ফলে আমাদের কনস্টিপেশনের মত সমস্যা কমে যেতে থাকে। এছাড়াও চুইং খেলে আমাদের মুখ গহ্বরে তৈরি হওয়া স্যালাইভা, আমাদের বাওয়েল মুভমেন্টের উন্নতি ঘটানোর মধ্যে দিয়ে কনস্টপেশনের মতো সমস্যা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৪। স্ট্রেস কমায়ঃ

মানসিক অবসাদ বা স্ট্রেস কমাতে কিন্তু চুইং গাম অনেক উপকারি। শুনে হয়তো অনেকেই অবাক হচ্ছেন, কিন্তু এটি পরিক্ষিত সত্য। যখন আমরা চুইং গাম চিবিয়ে থাকি, এসময় আমাদের ব্রেনে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের সরবরাহ অনেক বেড়ে যায়। একই সাথে এসময় কর্টিজল হরমোনের ক্ষরণ অনেক কমতে থাকে। আর  ফলেই আমাদের স্ট্রেস কমতে একদমই সময়ই লাগে না। আসলে কর্টিজল হল এক ধরনের স্ট্রেস হরমোন। এর  ক্ষরণ যত বাড়তে থাকে, আমাদের মানসিক চাপও তত বাড়তে থাকে।

৫। ওজন কমায়ঃ

কথাটা শুনে হয়তো অনেকেই খুব অবাক হচ্ছেন? অবাক হলেও কিন্তু এটি সত্যি। আসলে সরাসরি না হলেও চুইং গাম পরোক্ষভাবে আমাদের শরীরে জমে থাকা অতিরিক্ত মেদ ঝরিয়ে দিতে ভূমিকা পালন করে থাকে। আসলে চুইং গাম খাওয়া মাত্র নানা আমাদের  কারণে ক্ষুধা কমে যেতে শুরু করে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই খাওয়ার পরিমাণ কমতে থাকার কারণে অতিরিক্ত মেদ জমার আশঙ্কাও অনেক কমে যায়।

উপরে