ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১৮
রাতের খাবার

রাতের খাবারে যেসব নিয়ম আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

20fours Desk | আপডেট : ৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২২:০৭
রাতের খাবারে যেসব নিয়ম আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

সারাদিনের শেষে আসে রাত। আমাদের শরীর সারাদিন কাজ করে রাতে বিশ্রাম করতে অভ্যস্ত। আবার অনেকেই আছে যারা রাতে জেগে কাজ করে। আর এজন্য প্রয়োজন সঠিক এনার্জির। তাই প্রয়োজন রাতে  ঠিকমতো ঘুম ও খাওয়া দাওয়ার দিকে বিশেষ ভাবে নজর দেওয়া। আমরা অনেকেই রাতের খাবারের ব্যাপারে তেমন নিয়ম কানুন মেনে চলি না। আর এর ফলেই আমাদের স্বাস্থ্য খারাপ হয় এবং ওজন বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। আর আমরা সবাই জানি অতিরিক্ত ওজন মানেই নানারকম শারীরিক সমস্যা। তাই আমাদের রাতের খাবারের প্রতি বিশেষ মনযোগী হতে হবে। মেনে চলতে হবে বেশ কিছু নিয়ম।কিন্তু কী সেই নিয়ম? আসুন আজ জেনে নিই রাতের খাবারের বেশ কিছু নিয়ম যা আমাদের দিবে স্বাস্থ্যকর জীবন।

১। তাড়াতাড়ি খাবার খেতে হবেঃ

সাধারণত আমরা রাতের খাবার সবাই একটু দেরী করেই খেয়ে থাকি, যা একদমই উচিত না। সুস্থ্য থাকতে হলে সকালের খাবার এবং রাতের খাবার অবশ্যই তাড়াতাড়ি খেয়ে ফেলতে হবে। মাঝরাতে রাতের খাবার খেলে তা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠবে। এজন্য চিকিৎসকরা রাত সাড়ে আটটার মধ্যেই রাতের খাবার খেয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

২। রাতে খেতে হবে একদম হালকা খাবারঃ

অনেকেই রাতে অনেক ভারী খাবার বা একদম পেট ভর্তি করে খেয়ে থাকেন। এটি একদমই উচিত নয়। রাতের খাবার হবে একদম হাল্কা। যেমন- সবজি, ব্রাউন রাইস, ডাল, বা চিকেন। রাতের খাবারের মেনুতে প্রোটিন ও ফাইবারে সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াই সবচেয়ে ভালো। অনেকেরই রাতের খাবারে বেশ ভাঁজা-পোড়া বা তৈলাক্ত খাবার খেয়ে থাকেন। এটিও আমাদের বর্জন করতে হবে। এসব খাবারে যে শুধু পেট ফাঁপে তা না, বরং আমাদের ওজনও অনেক বৃদ্ধি পায়। রাতে হজম ব্যবস্থা নিষ্ক্রিয় থাকে ফলে তৈলাক্ত খাবারে গ্যাসট্রিক বাড়তে পারে।

৩। খেতে পারেন এক মুঠো বাদামঃ

রাতে খাবার খাওয়ায় কিছুক্ষণ পরে এক মুঠো বাদাম খেতে পারে। এতে রাতে আর ক্ষুধা লাগবে না এবং আমাদের মস্তিষ্কের অনেক উপকার হবে। অনেকেই রাতে জেগে কাজ করেন। তাদের রাতে কাজ করার এনার্জি দিবে বাদাম। এজন্য খাবার খাওয়ার আধা ঘন্টা পর রোস্টেড চানা, মাখানা, আমন্ড জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকগণ। এতে যেমন আমাদের এনার্জি বাড়বে, তেমনি ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

৪। ক্যাফেইন থেকে বিরত থাকুনঃ

অনেকেই আছেন যারা রাতে খাবার পর চা কিংবা কিফি খেয়ে থাকে। রাতে খাবার পর চা কিংবা কফি খাওয়া একদমই ঠিক না। অনেকেই রাতে জেগে থাকার জন্য কাপের পরে কাপ চা-কফি খান। এসময় চা কিংবা কফিতে থাকা ক্যাফেইন শরীরে প্রবেশ করলে উপকার তো হয়ই না, বরং ক্ষতিই বেশি হয়ে থাকে। তাই রাতে চা কিংবা কফি খাওয়ার অভ্যাস একদম পরিত্যাগ করতে হবে। এর পরির্বতে একগ্লাস নরমাল পানি বা ফলের রস খেতে পারেন।

৫। এক চা চামচ ঘি বা মাখন খেতে পারেনঃ

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রমতে রাতে জাগলে আমাদের শরীর শুষ্ক হয়ে যায় বা শুকিয়ে যায়। আর এ জন্য খাওয়ার পরে এক চামচ ঘি খেলে আমাদের শরীরের পানির ভারসাম্য বজায় রাখে। খাওয়ার এক ঘন্টা পরে এক চামচ ঘি বা মাখন খেতে পারে। এতে আমাদের শরীর শুষ্ক হবে না এবং একই সাথে ত্বক ভাল থাকবে। এতে আমাদের শরীরে পানির সঠিক ভারসাম্যও বজায় থাকবে।

উপরে